অনলাইনে ভিডিও ব্রডকাস্টের ২ সফটওয়্যার

Please log in or register to like posts.
আর্টিক্যাল

শুধু বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে নয়, আজকাল ভিডিও থেকে আয়ও হচ্ছে বেশ। এ কারণে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিও পোস্টের হিড়িক পড়েছে।

এগুলোর মধ্যে যেসব ভিডিওর মান ভালো সেগুলো জনপ্রিয়তাও পাচ্ছে। বর্তমানে অনলাইনে ভিডিওগুলোর ভিউয়ার অন্য যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি। অন্যদিকে লাইভ স্ট্রিমিংয়ের মাধ্যমে যে কেউ সহজেই তার কথা বা বার্তা যেমন ছড়িয়ে দিতে পারছেন, তেমনি পণ্য ও সেবা কেনাসহ অন্যান্য বাণিজ্যিক কাজেও তা ব্যবহার হচ্ছে।

বর্তমানে এটা প্রমাণিত ব্যবসার ক্ষেত্রে ভিডিও ব্রডকাস্ট বেশ সহায়ক। তাই অনেকে এ মাধ্যমকে কাজে লাগাচ্ছেন। যারা এখনও পিছিয়ে রয়েছেন তারাও কিন্তু এমন উদ্যোগ নিতে পারেন।

তাদের সহায়তায় এ টিপস, যাতে অনলাইনে ব্রডকাস্টের জন্য ব্যবহৃত চমৎকার দুই সফটওয়্যার সম্পর্কে তুলে ধরা হল।

ওবিএস স্টুডিও

অনলাইনে লাইভ স্ট্রিমিংয়ের জন্য বহুল ব্যবহৃত সফটওয়্যার ওবিএস স্টুডিও। ওপেন সোর্স সফটওয়্যার হওয়ার কারণে এটি বিনামূল্যে ব্যবহার করা যায়।

সফটওয়্যারটির মূল ফিচারগুলোর মধ্যে রয়েছে ব্রডকাস্ট করার সময় মাল্টিপল সোর্সের মধ্যে সুইচিং করার সুবিধা। অর্থাৎ লাইভ চলাকালীন সময়ে ক্যামেরা থেকে ডেক্সটপ ক্যাপচারে সুইচ করা যাবে।

এতে রয়েছে পছন্দমত থিম নির্বাচনের সুবিধা।

এটির মাধ্যমে ভিডিও স্ট্রিমিংয়ের সময় লাইভ চ্যাট, স্টিকারসহ নানা ফিল্টার যুক্ত করা যাবে।

সফটওয়্যারটি উইন্ডোজ, ম্যাকওএস ও লিনাক্সভিত্তিক কম্পিউটারে ডাউনলোড ও ইন্সটল করা যাবে কোনো ধরণের ঝুট ঝামেলা ছাড়া।

আপনার যদি প্লাগইন ব্যবহার করার ধারণা থাকে তাহলে অন্য যে কোনো পেইড ব্রডকাস্ট টুলের মতোই সার্ভিস আপনি ওবিএস স্টুডিও থেকে পাবেন।

এই ঠিকানা থেকে সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।

ওয়্যারকাস্ট

অনলাইনে ভিডিও ব্রডকাস্টের একটি প্রিমিয়াম সফটওয়্যার হলো ওয়্যারকাস্ট। এতে রয়েছে মাল্টিপল সোর্স থেকে ইনপুট নেওয়ার সুযোগ। এর মধ্যে রয়েছে ক্যামেরা, মাইক, ওয়েবক্যাম, আইপি ক্যামেরা, ক্যাপচার কার্ড ও ডেক্সটপ।

ইন্সট্যান্ট রিপ্লে, স্কোরবোর্ড, ইন্সট্যান্স ক্লক ও টাইমার রিয়েল টাইমে ব্যবহার করার সুযোগ পাওয়া যাবে এ সফটওয়্যার ব্যবহারের সময়।

আটটি অডিও ট্র্যাক মিক্সার পর্যন্ত অডিও মিক্সারের সুযোগ মিলবে সফটওয়্যারটিতে।

বিল্ট-ইন ভিডিও কনফারেন্স এবং সোশাল মিডিয়া কমেন্টের জন্য বিশেষ ফিচার রয়েছে।

একই সঙ্গে একাধিক সোর্সে স্ট্রিমিং করার সুযোগ রয়েছে এতে। সফটওয়্যারটিতে স্ট্রিম ও রেকর্ড একই সঙ্গে করার সুযোগ পাবেন ব্যবহারকারীরা।

টুলটির বেসিক সংস্করণে পাবেন দুটি গেস্ট ব্যবহার করার সুযোগ, যাতে থাকবে ভিডিও চ্যাট, আনলিমিটেড ক্যাপচার, লাইভ প্রডাকশনসহ আরও বেশ কয়েকটি ফিচার।

প্রিমিয়াম বলে এটি বিনামূল্যে পাওয়া যাবে না। ৩০ দিনের ফ্রি ট্রায়ালের পর সফটওয়্যাটি কিনতে হবে ২২৪ মার্কিন ডলারে।

এ ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।

Reactions

0
1
0
0
0
0
Already reacted for this post.

কেউ পছন্দ করেনি!

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।